• শুক্রবার, ২৫ জুন ২০২১, ১১ আষাঢ় ১৪২৮  নিউইয়র্ক সময়: ০৬:৪৭    ঢাকা সময়: ১৬:৪৭

কন্নড়কে ভারতের কুরুচিপূর্ণ ভাষা বলায় ক্ষমা চাইলো গুগল

দেশকণ্ঠ প্রতিবেদন :  সম্প্রতি ভারতের সবচেয়ে কুরুচিপূর্ণ ভাষা হিসেবে উঠে এসেছে “কন্নড়” ভাষার নাম।  ভারতের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় রাজ্য কর্ণাটকের সরকারি ভাষা হিসেবে প্রচলিত এ ভাষাটি প্রায় দুই হাজার বছরের পুরোনো। ঐতিহাসিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ এ ভাষাকে অপমান করার জন্য গুগলের প্রতি তীব্র নিন্দা জানিয়েছে দক্ষিণ ভারতের এ ভাষা ব্যবহারকারী প্রায় ৪ কোটি মানুষ।
 
কর্ণাটক সরকারও বৃহস্পতিবার (৩ জুন) এর বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে এবং গুগলের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছে। কর্ণাটকের সংস্কৃতি মন্ত্রী অরবিন্দ লিম্বাওয়ালি বলেন, "এটি অত্যন্ত নিন্দনীয় বিষয়। গুগল বা অন্য কেউ যদি কন্নড় ভাষার প্রতি অবজ্ঞাসূচক আচরণ করে বা অপমান করে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।"
 
লিম্বাওয়ালি আরও বলেন, “এ ঘটনায় তাৎক্ষণিকভাবে গুগলকে নোটিশ দেওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।” এদিকে, তীব্র প্রতিবাদের মুখে গুগল সেই অনুসন্ধানের ফলাফল সরিয়ে ফেলেছে এবং ক্ষমা চেয়েছে।  তারা বলেছে, অনুসন্ধানের ফলাফলগুলি সবসময় সঠিক হয় না। বিষয়টি সম্পর্কে সচেতন করা হলে গুগলের সংশ্লিষ্ট দলটি দ্রুত সংশোধনমূলক পদক্ষেপ নেয়। গুগল অ্যালগরিদমের উন্নয়নের জন্যে সর্বদা চেষ্টা চালানো হচ্ছে বলে জানায় গুগল।
 
আসলে কী হয়েছিল?
গুগল সার্চ কিংবা অনুসন্ধানের ফলাফল মূলত অ্যালগরিদমভিত্তিক। আর সেটি নির্ভর করে ওয়েবসাইট এবং তাদের অনলাইন সামগ্রীর কি-ওয়ার্ডের উপর। যখন কোনো ব্যবহারকারী কোন ওয়েবসাইটে হওয়া অনুসন্ধানে প্রবেশ করে, তখন ইন্টারনেট জুড়ে গুগলের অ্যালগরিদম এমন কি-ওয়ার্ডগুলোই দেখে যেগুলো ওয়েবসাইট এবং নিবন্ধগুলির সাথে সম্পর্কিত। পরবর্তীতে সেটির ওপর ভিত্তি করে মনে হওয়া সবচেয়ে উপযুক্ত জিনিসটিকেই ফলাফল হিসেবে নিয়ে আসে অ্যালগরিদম। 
 
এটি মূলত অনুসন্ধান ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশন বা এসইও হিসেবে পরিচিত। তাই বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে এখানে এমন সাইটগুলোই দায়ী, যারা এই বিষয়ক কি-ওয়ার্ডের উপর ভিত্তি করে বিভিন্ন বিষয়বস্তু ব্যবহার করেছিল।
দেশকণ্ঠ/অআ

  মন্তব্য করুন
AD by Deshkontho
AD by Deshkontho
আরও সংবাদ
×

আমাদের কথা: ছড়িয়ে পড়ছে বিশ্বব্যাপী অনলাইন মিডিয়া। গতি ও প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মিলিয়ে মানুষও তথ্যানুসন্ধানে নির্ভরযোগ্য মাধ্যম হিসেবে বেছে নিয়েছে অনলাইন। যতই দিন যাচ্ছে, অনলাইন মিডিয়ার সঙ্গে মানুষের সর্ম্পক তত নিবিড় হচ্ছে। দেশ, রাষ্ট্র, সীমান্ত, স্থল-জল, আকাশপথ ছাড়িয়ে যেকোনো স্থান থেকে ‘অনলাইন মিডিয়া’ এখন আর আলাদা কিছু নয়। পৃথিবীর যে প্রান্তে যাই ঘটুক, তা আর অজানা থাকছে না। বলা যায় অনলাইন নেটওয়ার্ক এক অবিচ্ছিন্ন মিডিয়া ভুবন গড়ে তুলে এগিয়ে নিচ্ছে মানব সভ্যতার জয়যাত্রাকে। আমরা সেই পথের সারথি হতে চাই। ‘দেশকণ্ঠ’ সংবাদ পরিবেশনে পেশাদারিত্বকে সমধিক গুরুত্ব দিয়ে কাজ করতে বদ্ধপরির। আমাদের সংবাদের প্রধান ফোকাস পয়েন্ট সারাবিশ্বের বাঙালির যাপিত জীবনের চালচিত্র। বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্রসহ আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলের সংবাদও আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। আমরা একঝাক ঋদ্ধ মিডিয়া প্রতিনিধি যুক্ত থাকছি দেশকণ্ঠের সঙ্গে।