• সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১, ১৮ শ্রাবণ ১৪২৮  নিউইয়র্ক সময়: ২২:০৭    ঢাকা সময়: ০৮:০৭

টাঙ্গাইলে হাট কাঁপাতে আসছে ‘হিরো আলম’

দেশকণ্ঠ প্রতিবেদন :  আসন্ন কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলায় প্রস্তত করা হয়েছে ‘হিরো আলম’ নামের একটি ষাঁড় গরু। ৪ বছরের এ গরুটির ওজন প্রায় ৩১ মণ, দৈর্ঘ্য সাড়ে ৮ ফুট এবং প্রস্থ ৫ ফুট ৭ ইঞ্চি। ফ্রিজিয়ান জাতের এ ষাঁড় গরুটির দাম ধরা হয়েছে সাড়ে ১২ লাখ টাকা। এ গরুটিকে লালন-পালন করা হয়েছে উপজেলার ফাজিলহাটী ইউনিয়নের বটতলা গ্রামের প্রবাসী কামরুজ্জামানের স্ত্রী জয়নব বেগমের খামারে। 
 
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আলোচিত নাম, হিরো আলম। অভিনয় জগতে অল্প দিনেই আলোচনায় উঠে আসার কারণেই কোরবানির পশুটির নামও রাখা হয়েছে তার নামে। 
 
জানা যায়, অন্যান্য বছরের মত এবারও কোরবানির জন্য তিনটি গরু প্রস্তুত করেছেন জয়নব বেগম। তিনটির মধ্যে সব চেয়ে বড় এ ষাঁড়টিপ্রায় দেড় বছর আগে পাবনা থেকে সাড়ে তিন লাখ টাকা দিয়ে ক্রয় করেন। এরপরই ষাঁড়টির নামকরণ করা হয় হিরো আলমের নামে। নাম হিরো আলম হওয়ায় ও বেশ বড় আকৃতির কারণে জয়নব বেগমের বাড়িতে ষাঁড়টি দেখতে ভিড় করছেন স্থানীয়রা। ষাঁড়টি এবার ঢাকার অন্যতম গাবতলীর হাটে বিক্রির জন্য উঠানো হবে। 
 
গত বছর জয়নব বেগমের খামার থেকে বিক্রি করা ষাঁড়টির নাম ছিল “সোনা বাবু”। সেটির ওজন ছিল প্রায় ৩৫ মণ।  খামারি জয়নব বেগম বলেন, “প্রতি বছরই আমি কোরবানির ঈদে বিক্রির জন্য ষাঁড় প্রস্তুত করি। এবারও তিনটি ষাঁড় প্রস্তুত করেছি। গরুটিকে প্রাকৃতিক খাবার খাইয়ে বড় করেছি। আমার পরিবারের সদস্যরা গরুগুলো লালন-পালনে সহযোগিতা করেন।” 
 
তিনি বলেন, “অনেকেই গরুর নাম রাখে- সাকিব খান, ডিপজল, সুলতান, সিনবাদ, মানিক, রতন, রাজা-বাদশা, খোকাবাবু ইত্যাদি। আমিও গরুটির নাম রেখেছি হিরো আলম। হিরো আলম এখন অনেক জনপ্রিয়। আমার গরুটিও উপজেলার মধ্যে সব চেয়ে বড়। এ জন্য হিরো আলমের নামেই নামটি রেখেছি। আমরা সবাই গরুটিকে হিরো আলম বলেই ডাকি।”
 
জয়নব বেগমের স্বামী কামরুজ্জামান বলেন, “গরু লালন-পালন করতে আমার খুব ভালো লাগে। প্রবাসে যাওয়ার আগে আমি নিজেই গরুর খামার করেছিলাম। আমি প্রবাসে থাকায় স্ত্রীকে দিয়ে প্রতি বছর কোরবানির ঈদে বিক্রির জন্য গরু প্রস্তুত করি। এবারও তিনটি গরু প্রস্তুত করা হয়েছে। হিরো আলম নামের গরুটি সব চেয়ে বড়।”
 
এ ব্যাপারে উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসার এনায়েত করিম বলেন, “নিয়মিত ষাঁড়টিকে দেখাশোনা করা হচ্ছে। প্রাকৃতিক খাবার খাইয়ে ষাঁড়টি লালন-পালন করছেন জয়নব বেগম। তার ষাঁড়টিই উপজেলার মধ্যে সব চেয়ে বড়। লকডাউনের কারণে কোরবানির পশু বিক্রি ও ন্যায্য মূল্য নিয়ে খামারিরা চিন্তিত রয়েছেন। আমরা অনলাইনে পশু বিক্রির জন্য অ্যাপস তৈরি করেছি। ওই অ্যাপস-এর মাধ্যমে যে কেউ কোরবানির পশু বিক্রি করতে পারবেন বলে তিনি জানান। 
দেশকণ্ঠ/অআ

  মন্তব্য করুন
AD by Deshkontho
AD by Deshkontho
×

আমাদের কথা: ছড়িয়ে পড়ছে বিশ্বব্যাপী অনলাইন মিডিয়া। গতি ও প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মিলিয়ে মানুষও তথ্যানুসন্ধানে নির্ভরযোগ্য মাধ্যম হিসেবে বেছে নিয়েছে অনলাইন। যতই দিন যাচ্ছে, অনলাইন মিডিয়ার সঙ্গে মানুষের সর্ম্পক তত নিবিড় হচ্ছে। দেশ, রাষ্ট্র, সীমান্ত, স্থল-জল, আকাশপথ ছাড়িয়ে যেকোনো স্থান থেকে ‘অনলাইন মিডিয়া’ এখন আর আলাদা কিছু নয়। পৃথিবীর যে প্রান্তে যাই ঘটুক, তা আর অজানা থাকছে না। বলা যায় অনলাইন নেটওয়ার্ক এক অবিচ্ছিন্ন মিডিয়া ভুবন গড়ে তুলে এগিয়ে নিচ্ছে মানব সভ্যতার জয়যাত্রাকে। আমরা সেই পথের সারথি হতে চাই। ‘দেশকণ্ঠ’ সংবাদ পরিবেশনে পেশাদারিত্বকে সমধিক গুরুত্ব দিয়ে কাজ করতে বদ্ধপরির। আমাদের সংবাদের প্রধান ফোকাস পয়েন্ট সারাবিশ্বের বাঙালির যাপিত জীবনের চালচিত্র। বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্রসহ আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলের সংবাদও আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। আমরা একঝাক ঋদ্ধ মিডিয়া প্রতিনিধি যুক্ত থাকছি দেশকণ্ঠের সঙ্গে।