• সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১, ১৮ শ্রাবণ ১৪২৮  নিউইয়র্ক সময়: ২০:১৩    ঢাকা সময়: ০৬:১৩

টিভ্যাসে বাড়তে পারে বিদেশি বিনিয়োগ চিন্তায় দেশি উদ্যোক্তারা

দেশকণ্ঠ প্রতিবেদন :  দেশে মোবাইলফোন ভিত্তিক বিভিন্ন ধরনের সেবা তথা টিভ্যাস-এর (টেলিকম ভ্যালু অ্যাডেড সার্ভিসেস) অনুমোদন আছে ১৮৩টি প্রতিষ্ঠানের। প্রতিষ্ঠানগুলো গাইডলাইন অনুসারে ৩০ শতাংশ নিজেদের মালিকানায় রেখে ৭০ শতাংশ পর্যন্ত বিদেশি বিনিয়োগ নিতে পারে। সম্প্রতি বিদেশি বিনিয়োগ বৃদ্ধির জন্য টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসিতে একটি টিভ্যাস প্রতিষ্ঠানের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে কমিশন কিছু শর্তারোপ করে বিষয়টি যাচাই-বাছাইয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
 
দেশীয় টিভ্যাস খাত সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, এই অনুমোদন পেলে অনেক প্রতিষ্ঠান বিদেশি বিনিয়োগ নিয়ে আসবে। তখন তাদের একচেটিয়া দাপটে দেশি প্রতিষ্ঠানগুলো টিকতে পারবে না। আর শতভাগ বিদেশি বিনিয়োগ এলে দেশি প্রতিষ্ঠানগুলো তো অস্তিত্বই হারাবে। জানা যায়, টিভ্যাস প্রতিষ্ঠান স্টেলার ডিজিটাল লিমিটেড তাদের বৈদেশিক মালিকানা ৭০ থেকে ৯০ শতাংশে উন্নীত করতে এবং দেশি মালিকানা ১০ শতাংশ করার অনুমোদন চেয়ে বিটিআরসিতে আবেদন করলে কমিশন ভিন্ন পন্থা অবলম্বনে উদ্যোগী হয়। কমিশনের ২৫১তম বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়।
 
বৈঠকে আরও সিদ্ধান্ত হয়, বিনিয়োগ বাড়াতে কোনও প্রতিষ্ঠান খ্যাতনামা কিনা সেটার মাপকাঠি নির্ধারণে পারফরমেন্স কেমন তা বিবেচনা করা যেতে পারে। টেলিযোগাযোগ খাতে প্রতিষ্ঠানটির কার্যক্রম পরিচালনার অন্তত পাঁচ বছরের বাস্তব অভিজ্ঞতাও বিবেচনায় আনা যেতে পারে। এ ছাড়া বিদেশি প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশে কী পরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ করতে আগ্রহী সে সংক্রান্ত তথ্যও আমলে নেওয়া যেতে পারে। প্রতিষ্ঠানটির বিনিয়োগে বিশেষ করে শুধু বিদেশি অংশ থেকে নগদ প্রবাহ কেমন হবে সেটাও পর্যালোচনা করা যেতে পারে।
 
সূত্রে জানা গেছে, টিভ্যাস নিবন্ধনের গাইডলাইন অনুযায়ী ৭০ শতাংশ বিনিয়োগ বিদেশি প্রতিষ্ঠানের এবং ৩০ শতাংশ দেশি প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে থাকতে পারবে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে ডাক ও টেলিযোগোযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, টিভ্যাস কোম্পানিগুলো চাইলে শতভাগ বিনিয়োগও নিতে পারে। বিদেশি বিনিয়োগে এখন ‘লিমিট’ নেই। বিনিয়োগ সুবিধায় এর ‍উল্লেখ রয়েছে। এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘শুধু টিভ্যাস নয়, টেলিযোগাযোগের যেকোনও খাতে শতভাগ বিনিয়োগ নেওয়া যেতে পারে। আমাদের এখন বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করা দরকার। এ নিয়ে ভয়ের কারণ দেখি না।’
 
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন টিভ্যাস উদ্যোক্তা বাংলা ট্রিবিউনকে জানালেন, ‘বড় বড় টিভ্যাস প্রতিষ্ঠান বসে আছে এই অনুমোদনের অপেক্ষায়। অনুমোদন পেলে এ দেশে নেটফ্লিক্স, হইচই, জি-ফাইভ, আমাজন প্রাইম সরাসরি অফিস খুলে ব্যবসা শুরু করবে। বিনিয়োগ নীতিমালার কারণে তাদের এ দেশীয় কোনও উদ্যোক্তার প্রয়োজন হবে না। এমনটা হলে দেশীয় ছোট উদ্যোক্তাদের টিকে থাকা কঠিন হয়ে যাবে।’ তিনি আরও জানান, ‘এমনিতেই দেশীয় টিভ্যাসগুলো নানা সংকটে আছে। শতভাগ বিদেশি বিনিয়োগ এলে দেশি টিভ্যাস উদ্যোক্তারা ব্যবসা গুটিয়ে নিতে বাধ্য হবে।’
দেশকণ্ঠ/অআ

  মন্তব্য করুন
AD by Deshkontho
AD by Deshkontho
আরও সংবাদ
×

আমাদের কথা: ছড়িয়ে পড়ছে বিশ্বব্যাপী অনলাইন মিডিয়া। গতি ও প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মিলিয়ে মানুষও তথ্যানুসন্ধানে নির্ভরযোগ্য মাধ্যম হিসেবে বেছে নিয়েছে অনলাইন। যতই দিন যাচ্ছে, অনলাইন মিডিয়ার সঙ্গে মানুষের সর্ম্পক তত নিবিড় হচ্ছে। দেশ, রাষ্ট্র, সীমান্ত, স্থল-জল, আকাশপথ ছাড়িয়ে যেকোনো স্থান থেকে ‘অনলাইন মিডিয়া’ এখন আর আলাদা কিছু নয়। পৃথিবীর যে প্রান্তে যাই ঘটুক, তা আর অজানা থাকছে না। বলা যায় অনলাইন নেটওয়ার্ক এক অবিচ্ছিন্ন মিডিয়া ভুবন গড়ে তুলে এগিয়ে নিচ্ছে মানব সভ্যতার জয়যাত্রাকে। আমরা সেই পথের সারথি হতে চাই। ‘দেশকণ্ঠ’ সংবাদ পরিবেশনে পেশাদারিত্বকে সমধিক গুরুত্ব দিয়ে কাজ করতে বদ্ধপরির। আমাদের সংবাদের প্রধান ফোকাস পয়েন্ট সারাবিশ্বের বাঙালির যাপিত জীবনের চালচিত্র। বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্রসহ আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলের সংবাদও আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। আমরা একঝাক ঋদ্ধ মিডিয়া প্রতিনিধি যুক্ত থাকছি দেশকণ্ঠের সঙ্গে।