• সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১, ১৮ শ্রাবণ ১৪২৮  নিউইয়র্ক সময়: ২২:০৩    ঢাকা সময়: ০৮:০৩

চীনে কোভিডের বিরুদ্ধে লড়ছে চেহারা শনাক্তকরণ প্রযুক্তি

দেশকণ্ঠ প্রতিবেদন :  করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে গ্রহণ করা বেশ কিছু কঠোর পদক্ষেপে ইতিমধ্যেই সফল হয়েছে চীনের সরকার। এবার করোনাভাইরাস রোধে প্রযুক্তিনির্ভর নতুন পদক্ষেপ নিচ্ছে তারা। সেখানে "ফেস রিকগনিশন" প্রযুক্তির মাধ্যমে মানুষের গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করা হবে।
 
আন্তর্জাতিক বার্তা সংস্থা এএফপির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা যায়। প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, মূলত মানুষদের নজরদারিতে রাখার জন্যেই "ফেস রিকগনিশন" প্রযুক্তি ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আর এই প্রযুক্তির সঙ্গে মানুষের স্বাস্থ্যসংক্রান্ত তথ্যও সংযুক্ত করে দেওয়া হয়েছে।
 
প্রসঙ্গত, জনসমাগমপূর্ণ স্থানগুলোয় মানুষের গতিবিধি পর্যবেক্ষণের জন্যে গত পাঁচ বছরে ২০ কোটির বেশি ক্লোজ সার্কিট (সিসিটিভি) ক্যামেরা স্থাপন করেছে সরকার। চীনই সর্বপ্রথম দেশ যা নমুনা পরীক্ষার ফলাফল তালিকাভুক্ত করতে এবং তা নজরদারি করার জন্য একটি কিউআর কোড সিস্টেম ব্যবহার করেছিল। তবে আবাসিক এলাকা, সুপারমার্কেট, পরিবহণ কেন্দ্র এবং অন্যান্য জনসমাগমপূর্ণ স্থানে মানুষদের প্রবেশ ও প্রস্থান করার সাথে সাথে কোনও ব্যক্তির গতিবিধি পর্যবেক্ষণে "ফেস রিকগনিশন" প্রযুক্তি ব্যবহারের এটিই প্রথম নজির।
 
এই "ফেস রিকগনিশন" প্রযুক্তির মাধ্যমে কোনো ব্যক্তির করোনাভাইরাস পরীক্ষার ফলাফল এবং তিনি কার কার সংস্পর্শে আসছেন তা জানা যাচ্ছে। এছাড়া, কোনো ব্যক্তি কখন যখন কোথায় যাচ্ছেন এবং তার বর্তমান শারীরিক অবস্থাও জানা যাবে এর মাধ্যমে। ফলে কেউ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে কার কার সংস্পর্শে আসছে, সেটাও জানা যাবে স্বয়ংক্রিয়ভাবে।
 
মায়ানমারের সীমান্তবর্তী চীনের ইউনান প্রদেশের রুইলিতে এই প্রযুক্তির ব্যবহার শুরু হয়েছে। এ ব্যাপারে শনিবার (১০ জুলাই) সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা সাংবাদিকদের বলেন, "সেখানে যারা প্রবেশ করছে এবং বের হচ্ছে, তাদের প্রত্যেকের স্বাস্থ্যসংক্রান্ত অবস্থা ও ফেস স্ক্যান করা হচ্ছে।" স্থানীয় কর্তৃপক্ষ এক বিবৃতিতে জানায়, "সুরক্ষার জন্যে প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম যেমন ফেস রিকগনিশন ক্যামেরা, স্মার্ট ডোর লকস এবং রাস্তায় গতিরোধক (পুলিশ বা কমিউনিটি স্বেচ্ছাসেবীরা পরিচালিত) স্থাপন করা হয়েছে।"
 
স্ক্যানারগুলি ব্যক্তিদের শরীরের তাপমাত্রা নির্ণয় করতে সক্ষম বলেও জানিয়েছে চীনের জাতীয় রেডিও। তবে ডেটাবেসটি কতক্ষণ রেকর্ড রাখবে বা এর প্রাদুর্ভাব শুরুর পরে নগরীর মহামারী প্রতিরোধমূলক টাস্কফোর্স দ্বারা নিরীক্ষণ করা সিস্টেমটি বন্ধ করে দেবে কিনা সে বিষয়ে বিস্তারিত কোনও বিবরণ নেই।
দেশকণ্ঠ/অআ

  মন্তব্য করুন
AD by Deshkontho
AD by Deshkontho
আরও সংবাদ
×

আমাদের কথা: ছড়িয়ে পড়ছে বিশ্বব্যাপী অনলাইন মিডিয়া। গতি ও প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মিলিয়ে মানুষও তথ্যানুসন্ধানে নির্ভরযোগ্য মাধ্যম হিসেবে বেছে নিয়েছে অনলাইন। যতই দিন যাচ্ছে, অনলাইন মিডিয়ার সঙ্গে মানুষের সর্ম্পক তত নিবিড় হচ্ছে। দেশ, রাষ্ট্র, সীমান্ত, স্থল-জল, আকাশপথ ছাড়িয়ে যেকোনো স্থান থেকে ‘অনলাইন মিডিয়া’ এখন আর আলাদা কিছু নয়। পৃথিবীর যে প্রান্তে যাই ঘটুক, তা আর অজানা থাকছে না। বলা যায় অনলাইন নেটওয়ার্ক এক অবিচ্ছিন্ন মিডিয়া ভুবন গড়ে তুলে এগিয়ে নিচ্ছে মানব সভ্যতার জয়যাত্রাকে। আমরা সেই পথের সারথি হতে চাই। ‘দেশকণ্ঠ’ সংবাদ পরিবেশনে পেশাদারিত্বকে সমধিক গুরুত্ব দিয়ে কাজ করতে বদ্ধপরির। আমাদের সংবাদের প্রধান ফোকাস পয়েন্ট সারাবিশ্বের বাঙালির যাপিত জীবনের চালচিত্র। বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্রসহ আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলের সংবাদও আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। আমরা একঝাক ঋদ্ধ মিডিয়া প্রতিনিধি যুক্ত থাকছি দেশকণ্ঠের সঙ্গে।