• সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১, ১৮ শ্রাবণ ১৪২৮  নিউইয়র্ক সময়: ২০:৪৪    ঢাকা সময়: ০৬:৪৪

নুহাশ পল্লীতে সীমিত পরিসরে পালিত হচ্ছে হুমায়ূন আহমেদের মৃত্যুবার্ষিকী

দেশকণ্ঠ প্রতিবেদন :  বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে সীমিত পরিসরে গাজীপুরের নুহাশ পল্লীতে পালিত হচ্ছে  নন্দিত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের ৯ম মৃত্যুবার্ষিকী। কোরআন তেলওয়াত, সীমাবদ্ধ আয়োজনে দোয়া মাহফিলের মাধ্যমে দিনটি পালন করা হচ্ছে। করোনাভাইরাস সংকটের কারণে লোক সমাগম অন্যান্য বছররে তুলনায় কিছুটা কম হলেও তবে তার কবর জিয়ারতে হুমায়ূন ভক্তদের পুরোপুরি আটকে রাখা যায়নি।
 
সোমবার সকাল থেকেই গাজীপুর সদর উপজেলার পিরুজালী গ্রামে কথা সাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের নিজ হাতে গড়া নুহাশ পল্লীতে ভক্তদের সমাগম শুরু হয়েছে। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে নুহাশ পল্লীর ব্যবস্থাপক সাইফুল ইসলাম বুলবুল হিমু পরিবহন ও হুমায়ূন ভক্তদের সাথে নিয়ে কবর জিয়ারত, পুষ্পস্তবক অর্পণ ও মোনাজাতে অংশ নেন।
 
মোনাজাত পরিচালনা করেন নুহাশ পল্লী মসজিদের ইমাম হাফেজ মো. মুজিবুর রহমান। এ সময় লেখকের আত্মার শান্তি কামনায় মহান আল্লাহ তায়ালার কাছে মোনাজাত করা হয়। অপেক্ষা উপন্যাসে মৃত্যু নিয়ে নিজের ভাবনা তুলে ধরতে গিয়ে হুমায়ুন আহমেদ লিখেছেন ‘মৃত মানুষের জন্য আমরা অপেক্ষা করি না, আমাদের সব অপেক্ষা জীবিত মানুষের জন্য’। অথচ সম্ভব নয় জেনেও তার চলে যাওয়ার ৯ বছর পরও লক্ষ কোটি পাঠক-ভক্তরা অপেক্ষায় থাকে তার লেখা নতুন কোন বইয়ের জন্য।
 
এ দিন সকালে নুহাশ পল্লীতে আসা টঙ্গী সরকারি কলেজের স্নাতক প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী রাজন বলেন, “পাঠক ধরে রাখার অনন্য সাধারণ কৌশল রয়েছে হুমায়ূন আহমেদের লেখনীতে। যখন থেকে তার লেখা বই পড়া শুরু করেছি তখন থেকেই তার ভক্ত হয়ে গেছি। মন খারাপ হলেই হুমায়ূন স্যারের বই পড়ি।” হিমু পরিবহন গাজীপুরের সদস্য সানজিদা সিমু বলেন, “যতদিন বেঁচে থাকব ততদিন হুমায়ূন স্যারের ভালবাসা নিয়েই বেঁচে থাকতে চাই। স্যারের সকল লেখা পড়তে চাই।”
 
নুহাশ পল্লীর ব্যবস্থাপক সাইফুল ইসলাম বুলবুল বলেন, “করোনা সংক্রমণের কারণে নুহাশপল্লীতে এবার আয়োজন সীমিত করা হয়েছে। সীমাবদ্ধ আয়োজনে এবার তার মৃত্যুবার্ষিকী পালন করা হচ্ছে। প্রতি বছর নানা আয়োজনে কাঙ্গালীভোজের আয়োজন থাকলেও এবার ওইসবের অর্থ দুঃস্থদের মধ্যে বিতরণ করা হচ্ছে।” হুমায়ূন আহমেদেরে পরিবারের সদস্য কিংবা কোন লেখক সকাল ১০ পর্যন্ত নুহাশপল্লীতে আসেনি বলেও জানান তিনি। নাই।
 
প্রসঙ্গত, ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে ২০১২ সালের ১৯ জুলাই ৬৪ বছর বয়সে আমেরিকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় অসংখ্য ভক্তদের রেখে পৃথিবী থেকে চিরবিদায় নেন হুমায়ূন আহমেদ। পরে ২৪ জুলাই গাজীপুর সদর উপজেলার পিরুজালী গ্রামে স্বপ্নের নুহাশপল্লীর লিচুগাছ তলায় তার মরদেহ দাফন করা হয়।
দেশকণ্ঠ/অআ

  মন্তব্য করুন
AD by Deshkontho
AD by Deshkontho
আরও সংবাদ
×

আমাদের কথা: ছড়িয়ে পড়ছে বিশ্বব্যাপী অনলাইন মিডিয়া। গতি ও প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মিলিয়ে মানুষও তথ্যানুসন্ধানে নির্ভরযোগ্য মাধ্যম হিসেবে বেছে নিয়েছে অনলাইন। যতই দিন যাচ্ছে, অনলাইন মিডিয়ার সঙ্গে মানুষের সর্ম্পক তত নিবিড় হচ্ছে। দেশ, রাষ্ট্র, সীমান্ত, স্থল-জল, আকাশপথ ছাড়িয়ে যেকোনো স্থান থেকে ‘অনলাইন মিডিয়া’ এখন আর আলাদা কিছু নয়। পৃথিবীর যে প্রান্তে যাই ঘটুক, তা আর অজানা থাকছে না। বলা যায় অনলাইন নেটওয়ার্ক এক অবিচ্ছিন্ন মিডিয়া ভুবন গড়ে তুলে এগিয়ে নিচ্ছে মানব সভ্যতার জয়যাত্রাকে। আমরা সেই পথের সারথি হতে চাই। ‘দেশকণ্ঠ’ সংবাদ পরিবেশনে পেশাদারিত্বকে সমধিক গুরুত্ব দিয়ে কাজ করতে বদ্ধপরির। আমাদের সংবাদের প্রধান ফোকাস পয়েন্ট সারাবিশ্বের বাঙালির যাপিত জীবনের চালচিত্র। বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্রসহ আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলের সংবাদও আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। আমরা একঝাক ঋদ্ধ মিডিয়া প্রতিনিধি যুক্ত থাকছি দেশকণ্ঠের সঙ্গে।