• শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২ আশ্বিন ১৪২৮  নিউইয়র্ক সময়: ০৮:২২    ঢাকা সময়: ১৮:২২

ভাসানচরের রোহিঙ্গাদের সহায়তায় যুক্ত হচ্ছে জাতিসংঘ

  • মতামত       
  • ২৯ জুলাই, ২০২১       
  • ২৩

দেশকণ্ঠ প্রতিবেদন :  কক্সবাজার থেকে ভাসানচরে স্থানান্তরিত রোহিঙ্গাদের মানবিক সহায়তার উদ্দেশ্যে বাংলাদেশের সঙ্গে একটি সমঝোতা স্মারকের (এমওইউ) খসড়া প্রায় চূড়ান্ত করে ফেলেছে জাতিসংঘ। আগস্টের প্রথমদিকে ৪ পৃষ্ঠার ঐ খসড়া সইয়ের পর সেপ্টেম্বর থেকে মাঠ পর্যায়ের কাজ শুরু করবে জাতিসংঘ। জাতীয় দৈনিক প্রথম আলোর এক প্রতিবেদনে এ কথা জানা যায়।
 
প্রতিবেদনে আরও জানা যায়, মূলত ভাসানচরে বিভিন্ন ক্ষেত্রে জাতিসংঘ কিভাবে কার্যক্রম চালাবে, সে বিষয়গুলোই খসড়ায় উল্লেখ করা হয়েছে। সম্মত খসড়ায় স্বাস্থ্যগত বিষয়টিকে অগ্রাধিকার দিয়ে প্রয়োজন অনুযায়ী রোহিঙ্গাদের ভাসানচর থেকে বাইরে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হবে। তবে নির্দিষ্ট মেয়াদ শেষে তাদের ভাসানচরে ফিরে যেতে হবে।
 
ভাসানচরে সরিয়ে নেওয়া রোহিঙ্গাদের মানবিক সহায়তায় জাতিসংঘের সংযুক্তি নিয়ে সই হওয়ার অপেক্ষায় থাকা সমঝোতা স্মারকের খসড়া নিয়ে বুধবার (২৮ জুলাই) দুপুরে জাতিসংঘের কর্মকর্তাদের সঙ্গে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা আলোচনায় বসেন। তৃতীয় দফা আলোচনার পর ওই সমঝোতা স্মারকের খসড়ার বিষয়ে বাংলাদেশ ও জাতিসংঘ সম্মত হয়।
 
সরকার এখন পর্যন্ত নিজস্ব অর্থায়ন এবং দেশী–বিদেশি সাহায্য সংস্থাকে যুক্ত করে ভাসানচরে সরিয়ে নেওয়া রোহিঙ্গাদের মানবিক সহায়তা কার্যক্রম পরিচালনা করছে। ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের সরিয়ে নেওয়ার বিষয়ে শুরু থেকেই জাতিসংঘ বিরোধিতা করে এসেছে। প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় ভাসানচর কতটা ঝুঁকিমুক্ত, রোহিঙ্গাদের অবাধে ভাসানচর থেকে বাংলাদেশের মূল ভূখণ্ডে চলাচলের সুযোগ নিশ্চিত, তাদের স্বেচ্ছায় ভাসানচরে নেওয়া হয়েছে কি না- এ বিষয়গুলো নিয়ে জাতিসংঘের প্রশ্ন ছিল। পাশাপাশি আপত্তি ছিলো মিয়ানমারের সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠির অবাধ চলাচলে বিধিনিষেধ নিয়েও। 
 
পরবর্তীতে সেখানে একটি কারিগরি দল পাঠায় জাতিসংঘ। কাছাকাছি সময়ে ইসলামি সহযোগিতা সংস্থা (ওআইসি), ঢাকায় পশ্চিমাসহ বিভিন্ন দেশের কূটনীতিকদের পর জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থার (ইউএনএইচসিআর) দুই সহকারী হাইকমিশনারের ভাসানচর সফরের পর জাতিসংঘের কারিগরিদলসহ প্রতিনিধিদল ভাসানচর নিয়ে ইতিবাচক মনোভাব পোষণ করে।
 
পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেন বলেন, "ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের মানবিক সহায়তা কার্যক্রমে যুক্ততার বিষয়ে যে সমঝোতা স্মারক সই হবে তার খসড়া নিয়ে দুই পক্ষ আজ সম্মত হয়েছে। মূলত এরই আলোকে ভাসানচরে কার্যক্রম চালাবে জাতিসংঘ। আশা করছি আগস্টের শুরুতে এটি সই হওয়ার পর সেপ্টেম্বর থেকে ভাসানচরে মাঠপর্যায়ে কাজ শুরু করবে জাতিসংঘ।"
 
তিনি আরও বলেন, "কক্সবাজার ও ভাসানচরের পরিবেশ ও পরিস্থিতি যেহেতু ভিন্ন, কার্যক্রমের ধরনও হবে আলাদা। কক্সবাজারে শুরু থেকেই জাতিসংঘকে জরুরি পরিস্থিতি মোকাবিলায় নজর দিতে হয়েছে। সে তুলনায় ভাসানচরে কিছুটা ভালো পরিস্থিতিতে মানবিক কার্যক্রম চালাবে জাতিসংঘ।"
 
কূটনৈতিক সূত্র অনুযায়ী, সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, রোহিঙ্গারা রাখাইনে ফিরে গিয়ে যাতে সেখানকার শিক্ষাব্যবস্থার সঙ্গে নিজেদের মানিয়ে নিতে পারে সেজন্য ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের শিক্ষাকার্যক্রম মিয়ানমারের ভাষায় এবং সে দেশের পাঠ্যক্রম অনুযায়ী পরিচালিত হবে। শিক্ষার মতো কাজের ক্ষেত্রেও মিয়ানমার তথা রাখাইনের পরিস্থিতি বিবেচনায় নেওয়া হয়েছে।
 
উল্লেখ্য, কক্সবাজারের রোহিঙ্গা শিবিরের চাপ কমাতে সরকারের ১ লাখ রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে স্থানান্তরের সিদ্ধান্তের ধারাবাহিকতায় গত বছরের ৪ ডিসেম্বর থেকে রোহিঙ্গাদের কক্সবাজার থেকে ভাসানচরে সরিয়ে নেওয়া শুরু হয়। এখন পর্যন্ত ছয় দফায় মিয়ানমারের ১৮,৫২১ জন রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। এদের মধ্যে শিশু ৮,৭৯০ জন, নারী  ৫,৩১৯ জন  ও পুরুষ ৪,৪০৯ জন।
দেশকণ্ঠ/অআ

  মন্তব্য করুন
AD by Deshkontho
AD by Deshkontho
আরও সংবাদ
×

আমাদের কথা: ছড়িয়ে পড়ছে বিশ্বব্যাপী অনলাইন মিডিয়া। গতি ও প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মিলিয়ে মানুষও তথ্যানুসন্ধানে নির্ভরযোগ্য মাধ্যম হিসেবে বেছে নিয়েছে অনলাইন। যতই দিন যাচ্ছে, অনলাইন মিডিয়ার সঙ্গে মানুষের সর্ম্পক তত নিবিড় হচ্ছে। দেশ, রাষ্ট্র, সীমান্ত, স্থল-জল, আকাশপথ ছাড়িয়ে যেকোনো স্থান থেকে ‘অনলাইন মিডিয়া’ এখন আর আলাদা কিছু নয়। পৃথিবীর যে প্রান্তে যাই ঘটুক, তা আর অজানা থাকছে না। বলা যায় অনলাইন নেটওয়ার্ক এক অবিচ্ছিন্ন মিডিয়া ভুবন গড়ে তুলে এগিয়ে নিচ্ছে মানব সভ্যতার জয়যাত্রাকে। আমরা সেই পথের সারথি হতে চাই। ‘দেশকণ্ঠ’ সংবাদ পরিবেশনে পেশাদারিত্বকে সমধিক গুরুত্ব দিয়ে কাজ করতে বদ্ধপরির। আমাদের সংবাদের প্রধান ফোকাস পয়েন্ট সারাবিশ্বের বাঙালির যাপিত জীবনের চালচিত্র। বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্রসহ আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলের সংবাদও আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। আমরা একঝাক ঋদ্ধ মিডিয়া প্রতিনিধি যুক্ত থাকছি দেশকণ্ঠের সঙ্গে।