• শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২ আশ্বিন ১৪২৮  নিউইয়র্ক সময়: ০৮:৪৮    ঢাকা সময়: ১৮:৪৮

ধর্ষণের অভিযোগে কে-পপ তারকা গ্রেফতার

দেশকণ্ঠ প্রতিবেদন :  চীনা-কানাডিয়ান পপ তারকা ক্রিস উ-কে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছে। আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ কথা জানা যায়। বেইজিংয়ের পুলিশ কর্মকর্তারা জানান, ৩০ বছর বয়সী তারকার বিরুদ্ধে যৌন সম্পর্ক স্থাপনের জন্য একাধিকবার তরুণীদের প্রলুব্ধ করার অভিযোগ ছিল। মূলত অনলাইন অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্তটি পরিচালিত হয়।
 
তবে চীনের অন্যতম বড় পপ তারকা ক্রিস উ তার বিরুদ্ধে আনা সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। এই মাসের শুরুর দিকে একজন নারী ক্রিস উর বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে বলেন, মদ্যপ অবস্থায় পেয়ে উ তাকে আক্রমণ করেছিলেন। ১৯ বছর ডু মেইজু প্রথমবারের মত ক্রিস উর বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে জানান, ১৭ বছর বয়সে ক্রিস উ'র সঙ্গে তার প্রথম পরিচয় হয়েছিলো। ক্রিস উ তাকে তার বাড়িতে একটি পার্টিতে আমন্ত্রণ জানিয়ে তাকে মদ্যপানে জোর করা হয়েছিল এবং পরের দিন তিনি নিজেকে তার বিছানায় আবিষ্কার করেছিলেন।
 
ডু আরও বলেন, চাকরি এবং অন্যান্য সুযোগের প্রতিশ্রুতি দিয়ে যৌনতায় প্রলুদ্ধ করার ব্যাপারে ক্রিস উর বিরুদ্ধে আরও ৭ জন নারী তাকে জানিয়েছেন। এদের মধ্যে কেউ কেউ অপ্রাপ্তবয়স্ক। আরও ২৪ জন নারী চীনা পপ তারকার বিরুদ্ধে অসদাচরণের অভিযোগ এনেছেন। চীনের আইনে ১৮ বছরের কম বয়সীদের অপ্রাপ্তবয়স্ক হিসাবে বিবেচনা করা হয়, যেখানে যৌন সম্মতির বয়স ১৪।
 
নিজের বিরুদ্ধে আসা সব অভিযোগ অস্বীকার করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ক্রিস উ বলেন, "কোনো জোরপূর্ব যৌন সম্পর্ক ছিল না! কেউ 'কম বয়সী' ছিল না!" তিনি আরও বলেন, "যদি সত্যিই এই ধরনের কোনো কিছু হয়ে থাকতো তাহলে সবাই নিশ্চিত আমি নিজেই আত্মসমর্পণ করব!" এদিকে, ক্রিস উর আইনজীবীরা ডুর বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করছেন।
 
কে-পপ ব্যান্ড এক্সোর সদস্য হিসেবে মি উ প্রথম খ্যাতি অর্জন করেছিলেন। ২০১৪ সালে এককভাবে গায়ক, অভিনেতা, মডেল এবং প্রতিভা অন্বেষণ প্রতিযোগিতার বিচারক হিসেবে সফল ক্যারিয়ার শুরু করতে এক্সো ব্যান্ড ছেড়ে দেন তিনি।
দেশকণ্ঠ/অআ

  মন্তব্য করুন
AD by Deshkontho
AD by Deshkontho
আরও সংবাদ
×

আমাদের কথা: ছড়িয়ে পড়ছে বিশ্বব্যাপী অনলাইন মিডিয়া। গতি ও প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মিলিয়ে মানুষও তথ্যানুসন্ধানে নির্ভরযোগ্য মাধ্যম হিসেবে বেছে নিয়েছে অনলাইন। যতই দিন যাচ্ছে, অনলাইন মিডিয়ার সঙ্গে মানুষের সর্ম্পক তত নিবিড় হচ্ছে। দেশ, রাষ্ট্র, সীমান্ত, স্থল-জল, আকাশপথ ছাড়িয়ে যেকোনো স্থান থেকে ‘অনলাইন মিডিয়া’ এখন আর আলাদা কিছু নয়। পৃথিবীর যে প্রান্তে যাই ঘটুক, তা আর অজানা থাকছে না। বলা যায় অনলাইন নেটওয়ার্ক এক অবিচ্ছিন্ন মিডিয়া ভুবন গড়ে তুলে এগিয়ে নিচ্ছে মানব সভ্যতার জয়যাত্রাকে। আমরা সেই পথের সারথি হতে চাই। ‘দেশকণ্ঠ’ সংবাদ পরিবেশনে পেশাদারিত্বকে সমধিক গুরুত্ব দিয়ে কাজ করতে বদ্ধপরির। আমাদের সংবাদের প্রধান ফোকাস পয়েন্ট সারাবিশ্বের বাঙালির যাপিত জীবনের চালচিত্র। বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্রসহ আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলের সংবাদও আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। আমরা একঝাক ঋদ্ধ মিডিয়া প্রতিনিধি যুক্ত থাকছি দেশকণ্ঠের সঙ্গে।