• শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২ আশ্বিন ১৪২৮  নিউইয়র্ক সময়: ১০:০২    ঢাকা সময়: ২০:০২

৪০ ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবস পালিত

অশ্রুঝরা আগস্ট আসলেই আমরা ষড়যন্ত্রের গন্ধ পাই : আবু আহমেদ মন্নাফী

অনিন্দ্য আরিফ দিব্য : আগস্ট মাস; সব হারানোর মাস। পচাত্তরের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ তার পরিবারের সদস্যদের হত্যার মধ্য দিয়ে এদেশের সবকিছু কেড়ে নেয়ার চেষ্টা করা হয়েছিল। কিন্তু ওই চক্রান্তকারী খুনীরা তা করতে পারে নাই। তাই যখনই আগস্ট আমাদের সামনে আসে- তখন নেমে আসে অন্ধকার। সামনে আসে এক রক্তাক্ত বিশ্বাস ঘাতকতার ইতিহাস, অশ্রুঝরা আগস্ট আসলেই আমরা ষড়যন্ত্রের গন্ধ পাই।
 
 
শুক্রবার ২০ আগস্ট রাজধানীর ৪০ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ আয়োজিত ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা, দোয়া মাহফিল এবং তোবারক বিতরণ অনুষ্ঠানে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সংগ্রামী সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব আবু আহমেদ মন্নাফী এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ৪০নং ওয়ার্ডের জনপ্রিয় কাউন্সিলর আবুল কালাম আজাদ মিন্টু।
 
অনুষ্ঠানে  বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক শেখ মো. আজাহার, মহানগর আওয়ামী লীগের শিক্ষা ও মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক এস কে বাদল, মহানগর আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক চৌধুরী সাইফুন্নবী সাগর, মহানগর আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক আব্দুল মতিন ভুইয়া, মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা আইয়ুব আলী খান, সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর লাভলী চৌধুরী, ৪০ নং ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সিরাজ উদ্দিন লালা, মহানগর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মো. আলী সুবা। অশ্রুঝরা আগস্টের এই অনুষ্ঠান আয়োজন সার্বিক তত্ত্বাবধান করেছেন ৪০নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা মো. মাহবুব হোসেন ভুইয়া বাবু এবং মো. পারভেজ ইসলাম।
 
 
শোকাবহ আগস্ট বাংলাদেশের ইতিহাসের সর্বোধিক কালো অধ্যায়। সেদিন ওই ঘাতকেরা বলেছিল : বাংলার মাটিতে কোনো দিন শেখ মুজিবুর রহমান হত্যার বিচার হবে না। বলেছিল এমন কোন শক্তি নেই, যারা বাংলার মাটিতে নতুন করে জয় বাংলার স্লোগান দেয়। এমন কোনো শক্তি নেই যারা বঙ্গবন্ধুর নাম উচ্চারণ করবে। সেদিন তারা বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্যে দিয়ে তার নাম ইতিহাস থেকে মুছে ফেলার অপচেষ্টা করেছিল। কিন্তু তারা ব্যর্থ হয়েছে। বঙ্গবন্ধু নিজ কর্মগুণে ইতিহাসের পাতায় স্থান করে নিয়েছেন। বিশ্বের নির্যাতিত-নিপিড়ীত মানুষের হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছেন।
 
বাংলাদেশ স্রষ্টা সর্বকালে সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতাকে যারা হত্যা করেছে, তার নাম ইতিহাস থেকে মুছে ফেলার অপচেষ্টা করেছিল, খুনের বিচার হবে না বলে যারা দাম্ভিকতা দেখিয়েছিল, তারই সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে খুনীদের ফাঁসিতে ঝুলানো হয়েছে। আজ বাংলার ঘরে ঘরে জয় বাংলার স্লোগানের ধ্বনি উচ্চারিত হচ্ছে। বাংলা আকাশ বাতাস কলংক মুক্ত হয়েছে। আজ বাংলাদেশ ক্ষুধা ও দারিদ্র মুক্ত হয়েছে। বিশ্বের বুকে বাংলাদেশ মাথা উচু করে দাঁড়িয়ে।
দেশকণ্ঠ/আসো
 
 
 
 
 
 
 
 

  মন্তব্য করুন
AD by Deshkontho
AD by Deshkontho
আরও সংবাদ
×

আমাদের কথা: ছড়িয়ে পড়ছে বিশ্বব্যাপী অনলাইন মিডিয়া। গতি ও প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মিলিয়ে মানুষও তথ্যানুসন্ধানে নির্ভরযোগ্য মাধ্যম হিসেবে বেছে নিয়েছে অনলাইন। যতই দিন যাচ্ছে, অনলাইন মিডিয়ার সঙ্গে মানুষের সর্ম্পক তত নিবিড় হচ্ছে। দেশ, রাষ্ট্র, সীমান্ত, স্থল-জল, আকাশপথ ছাড়িয়ে যেকোনো স্থান থেকে ‘অনলাইন মিডিয়া’ এখন আর আলাদা কিছু নয়। পৃথিবীর যে প্রান্তে যাই ঘটুক, তা আর অজানা থাকছে না। বলা যায় অনলাইন নেটওয়ার্ক এক অবিচ্ছিন্ন মিডিয়া ভুবন গড়ে তুলে এগিয়ে নিচ্ছে মানব সভ্যতার জয়যাত্রাকে। আমরা সেই পথের সারথি হতে চাই। ‘দেশকণ্ঠ’ সংবাদ পরিবেশনে পেশাদারিত্বকে সমধিক গুরুত্ব দিয়ে কাজ করতে বদ্ধপরির। আমাদের সংবাদের প্রধান ফোকাস পয়েন্ট সারাবিশ্বের বাঙালির যাপিত জীবনের চালচিত্র। বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্রসহ আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলের সংবাদও আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। আমরা একঝাক ঋদ্ধ মিডিয়া প্রতিনিধি যুক্ত থাকছি দেশকণ্ঠের সঙ্গে।