• শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২ আশ্বিন ১৪২৮  নিউইয়র্ক সময়: ০৯:৪৫    ঢাকা সময়: ১৯:৪৫

সেজান জুস কারখানায় আজীবন আয়ের সমান ক্ষতিপূরণ দাবি

দেশকণ্ঠ প্রতিবেদন :  সজীব গ্রুপের সেজান জুস কারখানায় অগ্নিকাণ্ডে কাঠামোগত হত্যাকাণ্ডের শিকার কমপক্ষে ৫২ জন শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে শ্রমিক কর্মচারী ঐক্য পরিষদ (স্কপ) নামে একটি সংগঠন। একই সঙ্গে সংগঠনটি এ ঘটনায় দায়ীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং ক্ষতিগ্রস্তদের আজীবন আয়ের মানদণ্ডে ক্ষতিপূরণ নিশ্চিত করার দাবি জানিয়েছে। রোববার (৫ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১টায় ঢাকা বিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানায় সংগঠনটি।
 
শ্রমিক নেতা সহিদুল্লাহ চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলন পরিচালনা করেন যুগ্ম সমন্বয়ক কামরুল আহসান। স্কপের পক্ষে লিখিত বক্তব্য ও ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিটির রিপোর্ট পাঠ করেন অপর যুগ্ম সমন্বয়ক আনোয়ার হোসেন। সংবাদ সম্মেলনে সংবাদকর্মীদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন শ্রমিক নেতা নুর কুতুব মান্নান, মেজবাহ উদ্দিন আহমেদ, রাজেকুজ্জামান রতন, সাইফুজ্জামান বাদশা, ডা. ওয়াজেদুল ইসলাম খান, চৌধুরী আশিকুল আলম, নঈমুল আহসান জুয়েল, আহসান হাবিব বুলবুল, সাকীল আক্তার চৌধুরী, শামীম আরা, আব্দুল ওয়াহেদ, পুলক রঞ্জন ধর, নিহত শ্রমিক রহিমা বেগমের স্বামী মো. সেলিম ও মেয়ে লিপা আক্তার প্রমুখ।
 
সংবাদ সম্মেলন থেকে সেজান জুস কারখানায় অগ্নিকাণ্ডের পরিপ্রেক্ষিতে ৫ দফা দাবি এবং দাবি আদায়ে প্রাথমিক কর্মসূচী ঘোষণা করা হয়। তাদের দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে-
 
1. সুষ্ঠু তদন্ত ও সঠিক কারণ উদঘাটনের স্বার্থে বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করতে হবে।
 
2. সেজান জুস কারখানায় শ্রমিকদের মৃত্যুর জন্য দায়ী মালিকপক্ষ এবং কর্তব্যে অবহেলার জন্য দায়ী সংশ্লিষ্ট সরকারি কর্মকর্তাদের শাস্তি দিতে হবে।
 
3. মৃত্যুবরণকারী শ্রমিকদের আইএলও কনভেনশন ১২১ অনুযায়ী আজীবন আয়ের সমান ক্ষতিপূরণ প্রদান করতে হবে। এ ক্ষেত্রে হাইকোর্টের নির্দেশনা এবং রানা প্লাজা ধ্বংসের ঘটনায় ক্ষতিপূরণের হারকে বিবেচনায় নেয়া যেতে পারে।
 
4. ক্ষতিপূরণের একই হারে আহতদের চিকিৎসা, পুনর্বাসন ও ক্ষতিপূরণের ব্যবস্থা করতে হবে।
 
5. ফ্যাক্টরি বন্ধ থাকা অবস্থায় কর্মহীন শ্রমিকদের মজুরি প্রদান করতে হবে।
দেশকণ্ঠ/অআ

  মন্তব্য করুন
AD by Deshkontho
AD by Deshkontho
আরও সংবাদ
×

আমাদের কথা: ছড়িয়ে পড়ছে বিশ্বব্যাপী অনলাইন মিডিয়া। গতি ও প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মিলিয়ে মানুষও তথ্যানুসন্ধানে নির্ভরযোগ্য মাধ্যম হিসেবে বেছে নিয়েছে অনলাইন। যতই দিন যাচ্ছে, অনলাইন মিডিয়ার সঙ্গে মানুষের সর্ম্পক তত নিবিড় হচ্ছে। দেশ, রাষ্ট্র, সীমান্ত, স্থল-জল, আকাশপথ ছাড়িয়ে যেকোনো স্থান থেকে ‘অনলাইন মিডিয়া’ এখন আর আলাদা কিছু নয়। পৃথিবীর যে প্রান্তে যাই ঘটুক, তা আর অজানা থাকছে না। বলা যায় অনলাইন নেটওয়ার্ক এক অবিচ্ছিন্ন মিডিয়া ভুবন গড়ে তুলে এগিয়ে নিচ্ছে মানব সভ্যতার জয়যাত্রাকে। আমরা সেই পথের সারথি হতে চাই। ‘দেশকণ্ঠ’ সংবাদ পরিবেশনে পেশাদারিত্বকে সমধিক গুরুত্ব দিয়ে কাজ করতে বদ্ধপরির। আমাদের সংবাদের প্রধান ফোকাস পয়েন্ট সারাবিশ্বের বাঙালির যাপিত জীবনের চালচিত্র। বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্রসহ আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলের সংবাদও আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। আমরা একঝাক ঋদ্ধ মিডিয়া প্রতিনিধি যুক্ত থাকছি দেশকণ্ঠের সঙ্গে।